স্পোর্টস ডেস্কঃ বিশ্ব ফুটবলে দু'জনেই এখন মহাতারকা। এরাই শেষ কথা বলেন। ফুটবল অনুরাগীরা রাতের পর রাত জাগেন এই দু'জনের খেলা দেখার জন্য। কচিকাঁচারা তাদের নিয়েই স্বপ্ন দেখেন। তরুণদের কাছে তারা হলেন আদর্শ। তবে কী অদ্ভুত, বিশ্বকাপে এই দু'জন স্বপ্ন দেখেন না তাদের দেশ চ্যাম্পিয়ন হবে।

কোন দু'জন নিশ্চয়ই আর বলার অপেক্ষা রাখে না। একজন যদি হন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, তাহলে অপরজন হলেন লিওনেল মেসি। দুই দেশের দুই মহাতারকা বুঝিয়ে দিয়েছেন, রাশিয়ায় তারা ফেভারিট নন। আসলে পর্তুগাল কিংবা আর্জেন্টিনা দলের বাকি সদস্যরা এমন জায়গায় আপাতত নেই যাদের ঘিরে মানুষ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারে।

আর্জেন্টিনা কী নিদারুণ পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে বিশ্বকাপ খেলছে তা সকলের জানা। শেষ ম্যাচে যদি মেসি হ্যাটট্রিক না করতেন, তাহলে প্রাক বিশ্বকাপেই শেষ হয়ে যেত আর্জেন্টিনার দৌড়। তাই মেসি তিনটি গোলে সেদিন ভেনেজুয়েলাকে হারাননি, কোটি কোটি আর্জেন্টাইনকে লজ্জার হাত থেকে বাঁচিয়েছিলেন। রোনালদোর পর্তুগাল অবশ্য এতটা কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে বিশ্বকাপ খেলার ভিসা পায়নি। পেয়েছিল অনেকটা সহজভাবেই। 

মুশকিল হলো, রোনালদো পর্তুগিজদের যে স্বপ্ন দেখাতে সক্ষম হয়েছেন, তা পারেননি মেসি। কারণ, রোনালদো পেরেছেন উয়েফা কাপে পর্তুগালকে চ্যাম্পিয়ন করতে। সেই সঙ্গে পরপর তিনবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতে পর্তুগিজদের কাছে তিনি এখন ভাগ্যবান। মেসি সেই জায়গায় বেইজিং অলিম্পিকে সোনা দিয়েছেন। আর্জেন্টিনাকে চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন যুব বিশ্বকাপে। বাকি সব জায়গাতেই তিনি দেশের হাতে ট্রফি তুলে দিতে ব্যর্থ। 

গত বিশ্বকাপে ফাইনালে জার্মানির কাছে হেরে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা। সেদিন চোখে অশ্রু নিয়ে মাঠ থেকে বিদায় নিয়েছিলেন মেসি। এবার তাই দলকে চ্যাম্পিয়ন করার জন্য মরিয়া।

দু'জনেই সম্ভবত শেষবারের মতো বিশ্বকাপে নামবেন। দু'জনকে সম্ভবত আর বিশ্বকাপে খেলতে দেখা যাবে না। তাই তাদের কাছে এই বিশ্বকাপ হলো মর্যাদার। অধরা স্বপ্নকে এই দু'জন ধরার জন্য নিজেদের সঁপে দিতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করবেন না। অথচ এই দু'জনই মনে মনে জানেন, তাদের স্বপ্ন বোধহয় শেষপর্যন্ত অধরাই থেকে যাবে। তেমন ইঙ্গিত দু'জনেই দিয়ে রেখেছেন।

Post a Comment

 
Top