সুন্দরবনের আগুন তিনদিন পর নিযন্ত্রণে
নিউজ ডেস্কঃ বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের পঁচিশ নাম্বার কম্পার্টমেন্টের এলাকায় ধরিয়ে দেয়া নাশকতার আগুন শুক্রবার মধ্যরাতে নিয়ন্ত্রণে এসেছে। শনিবার চতুর্থদিন সকালে কোথাও আগুন জ্বলে উঠতে দেখা যায়নি। ইতোমধ্যে গত তিনদিনে পুড়ে গেছে প্রায় ২০ একর বন। নাশকতাকারীরা এবার সুন্দরবনের কয়েক কিলোমিটারের এলাকাজুড়ে অন্তত ২০টি স্থানে আগুন ধরিয়ে দেয়া আগুনে একরের পর একর বনাঞ্চলের সাথে পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য। আগুনে পুড়ে মারা গেছে সামুদ্রিক কচ্ছপও। এলাকাটি দুর্গম এবং পানির সুব্যবস্থা না থাকায় সবাইকে আগুন নেভাতে হিমশিম খেতে হয়েছে ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিটকে। এদিকে এই আগুন আগুন লাগিয়ে দেয়ার ঘটনায় শুক্রবার রাতে খলিলুর রহমান হাওলাদার (৩৫) নামে একজনকে আটক করেছে শরণখোলা থানা পুলিশ। সুন্দরবনে নাশকতার আগুনের ভয়াবহতা সরেজমিনে পরির্দমনে আজ শনিবার দুপুরে আসছেন প্রধান বন সংরক্ষক (সিসিএফ) মো. ইউনুছ আলী। আগামীকাল রবিবার সকালে পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু সুন্দরবনে আসছেন। ফায়ার সার্ভিস ও বন বিভাগ এতথ্য নিশ্চিত করেছে। বন বিভাগের খুলনা অঞ্চলের বন সংরক্ষক (সিএফ) মো. জহির উদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন, সুন্দরবনে এবারে দুর্বৃত্তদের দেয়া আগুনের ধরনটা একটু ভিন্ন। এই দুর্বৃত্তরা তুলাতলা এলাকার কয়েক কিলোমিটারের মধ্যে অন্তত ২০ টি স্থানে আগুন দিয়েছে। যা সনাক্ত করতে সময় লেগেছে। যার কারনে আগুন নিভাতেও সময় লাগছে। তদন্তের পাশাপাশি জিপিএস সিষ্টেমের মাধ্যমে ধরিয়ে দেয়া আগুনে পুড়ে যাওয়া এলাকাসহ ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরূপণের কাজ চলছে । বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক মানিকুজ্জামান মানিক শনিবার সকালে জানান, এখন বিভিন্ন এলাকায় আর ধোঁয়ার কুণ্ডলী পাকিয়ে আগুন জ্বলে উঠছেনা। বুধবার সন্ধ্যা থেকে শুক্রবার মধ্য রাত পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট বিরতিহীনভাবে কাজ করে আগুন নেভানো সম্ভব হয়েছে। পানির অভাবসহ প্রখর তাপদাহ ও তীব্র বাতাসের কারনে আগুন নেভানোর কাজ বিঘ্নিত হয়েছে। তবে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিকে ধানসাগর স্টেশনে স্ট্যান্ডবাই রাখা হচ্ছে। অপরদিকে এই আগুন লাগিয়ে দেয়ার ঘটনায় শুক্রবার রাতে খলিলুর রহমান হাওলাদার (৩৫) নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। শরণখোলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম মিয়া এতথ্য নিশ্চিত করে জানান, খলিল উপজেলার উত্তর রাজাপুর গ্রামের চান মিয়া হাওলাদারের ছেলে। সুন্দরবনে আগুন দেয়ার ঘটনায় জড়িত এমন তথ্যে ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়েছে।

Post a Comment

 
Top