বিশ্ব বাঘ দিবস আজ
নিউজ ডেস্কঃ বাঙালীর শৌর্য-বীর্যের প্রতীক রয়েল বেঙ্গল টাইগার এখন নিজের অস্তিত্বের সাথে যুদ্ধ করছে। সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা কমতে কমতে এখন তা আশংকাজনক পর্যায়ে নেমে এসেছে। গত এক দশকে এ সংখ্যা যা ধারণা করা হত এখন তা এক চতুর্থাংশেরও কম। এমন বাস্তবতায় অতি বিপন্ন বাংলাদেশের জাতীয় এই পশু রক্ষায় ব্যাপক ভিত্তিক কর্মসূচি গ্রহণ করা প্রয়োজন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সাম্প্রতিক সময়ে শেষ হয়েছে ৩ বছর মেয়াদী বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে ‘ক্যামেরা ট্যাপিং’ এর মাধ্যমে সুন্দরবনের বাঘ গণনার কাজ। এক দশকের ব্যবধানে এবারের জরিপে বাঘের সংখ্যায় বিশাল ফারাক উঠে এসেছে। ক্যামেরা ট্যাপিংয়ের ফলাফল অনুযায়ী সুন্দরবনের বর্তমান বাঘের সংখ্যা ১০৬টি। এ বিষয়ে বন বিভাগের বাঘ গণনা জরিপের প্রধান জাহিদুল কবির বলেন, ২০১৩ সাল থেকে ক্যামেরা ট্যাপিংয়ের মাধ্যমে বাঘ গণনার কাজ শুরুর করা হয়। বর্তমান সংখ্যাকে বৃদ্ধি না করলে অদূর ভবিষ্যতে বাঘ সুন্দরবন থেকে বিলুপ্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করেন বন বিভাগের কর্মকর্তা। সুন্দরবন একাডেমির পরিচালক অধ্যাপক আনোয়ারুল কাদির জানান, সুন্দরবনে বাঘের বসবাসের জন্য অনুকূল পরিবেশ হারাচ্ছে। এ অবস্থায় বাঘ রক্ষায় বন বিভাগ স্মার্ট পেট্রোলিং ও কমিউনিটি পেট্রেলিংয়ের কাজ শুরু করতে যাচ্ছে বলে জানান বন সংরক্ষক। খুলনা সার্কেলের বন সংরক্ষক ড.সুনীল কুমার কুণ্ডু বলেন, 'স্মার্ট পেট্রোলিংয়ের মাধ্যমে বাঘের যে অবৈধ শিকার হয় সেই শিকারিদের আমরা প্রতিরোধ করতে সক্ষম হব।' বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, বাঘের সংখ্যা গণনার ফলাফল তৈরিতে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে পাগমার্ক বা পায়ের ছাপ, অন্যান্য বন্য প্রাণী ও মানুষের পদচারণার উপস্থিতিকেও।

Post a Comment

 
Top