চট্টগ্রাম বন্দরে আটক তেলের আরেকটি ড্রামে কোকেনের অস্তিত্ব
চট্টগ্রাম বন্দরে আটক তেলের আরেকটি ড্রামে কোকেনের অস্তিত্ব
নিউজ ডেস্কঃ চট্টগ্রাম বন্দরে আটককৃত চালানের শুধু ৯৬ নম্বর ড্রাম নয়, ৫৯ নম্বর ড্রামেও কোকেনের অস্তিত্ব পেয়েছে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। আদালতের নির্দেশে নমুনা পরীক্ষা করতে গিয়ে তারা দু’টি ড্রামে কোকেনের অস্তিত্ব পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এছাড়া সিআইডি’র ফরেনসিক ল্যাবরেটরির পরীক্ষাতেও ৯৬ নম্বর ড্রামে কোকেন পাওয়া গেছে। এদিকে, সূর্যমুখী তেলে কোকেন থাকার বিষয়টি প্রথমেই বলিভিয়ায় ধরা পড়ার বেশ কিছু তথ্য প্রমাণ পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। সূর্যমুখী তেলের আড়ালে কোকেন চালান আনার ঘটনা নিয়ে সৃষ্ট রহস্য কাটছে না। দিন যতই যাচ্ছে রহস্য ততই দানা বাধছে। ৮জুন চট্টগ্রাম বন্দরে এ চালান আটকের পর তাৎক্ষণিকভাবে যে পরীক্ষা করা হয় তাতে কোকেনের অস্তিত্ব পায়নি তদন্তকারী দল। পরবর্তীতে ঢাকায় পরীক্ষায় ১শ' ৭টি ড্রামের মধ্যে মাত্র ৯৬ নম্বর ড্রামে পাওয়া যায় কোকেনের অস্তিত্ব। সবশেষ আদালতের নির্দেশে এর নমুনা পাঠানো হয় সিআইডি, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এবং আর্মড ফোর্সেস ল্যাবে। ইতোমধ্যে সিআইডি এবং মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ফলাফল পেয়েছে মামলার তদন্তকারী গোয়েন্দা পুলিশ। বলিভিয়া হয়ে উরুগুয়ে থেকে এ চালান বাংলাদেশে আনার ব্যাপারে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। এতে দেখা গেছে, পাচারের আগে বলিভিয়ায় পরীক্ষার সময় কোকেনের অস্তিত্ব ধরা পড়েছিল।
এদিকে, এ চালান পাচারের সাথে সম্পৃক্ত ব্রিটেনে অবস্থিত ফজলু এবং বকুল মিয়ার ঠিকানা নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ। কোকেন চালান আটকের ঘটনায় বন্দর থানায় দায়েরকৃত মামলায় পুলিশ এ পর্যন্ত ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতদের ১০ দিনের রিমান্ড জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আবারো গোয়েন্দা পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করবে বলে জানা গেছে।

Post a Comment

 
Top