অনলাইন ডেস্কঃ করোনাভাইরাসের সংক্রমণে চীনে এখন পর্যন্ত ১৩২ জন মারা গেছেন। আগামী ৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে এতে আক্রান্তের সংখ্যা সর্বোচ্চ আকার ধারণ করতে পারে বলে জানিয়েছে দেশটির ন্যাশনাল হেল্থ কমিশন। দেশটির যে শহর থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়েছে সেই উহান শহরে আটকা পড়েছেন বাংলাদেশিসহ বিশ্বের অনেক দেশের নাগরিকরা। কারণ, সেখানে বাইরে থেকে কাউকে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। আবার শহর থেকে কাউকে বের হতেও দেয়া হচ্ছে না।

এদিকে দেশটিতে অধ্যয়নরত বর্ণ সিদ্দিকী নামের এক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী মঙ্গলবার তার ফেসবুকে লাইভে এসে সেখানকার পরিস্থিতি জানিয়েছেন। তিনি চীনের ইউনান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। বসবাস করছেন ইউনান প্রদেশের কুনমিং সিটিতে। লাইভে বর্ণ সিদ্দিকী বলেন, ‘এ মুর্হূতে দেশের স্বার্থে আমি আমার মাতৃভূমিতে যাব না। চীনে আমরা শিক্ষার্থী ছাড়াও আরও হাজার হাজার বাংলাদেশি আছেন। আমরা জানি না, এ রোগটা কারও কাছে চলে এসেছে। এ রোগটার একটা অদ্ভুত ব্যাপার হচ্ছে, এটি শরীরে আসার পর থেকে ১৪ দিন অবস্থান করবে এবং কোনো লক্ষণও প্রকাশ করবে না। এখন আমরা যারা এখানে আছি, তারা যদি দেশে ফিরে যাই তাহলে নিজের অজান্তেই কারও না কারও সাথে এই ভাইরাস দেশে চলে যেতে পারে। তাই দেশের স্বার্থে এখন চীনে থাকাই ভালো।’ চীনের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাস নিয়ে গোটা চীনেই আতঙ্ক বিরাজ করছে।

তবে এ বিষয়ে গণমাধ্যমে তেমন খবর আসছে না। আমি আমার চাইনিজ বন্ধুদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, চীনে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি, যা বহির্বিশ্বের গণমাধ্যমে তেমন খবর প্রকাশ পাচ্ছে না। চীন সরকার চাচ্ছে না যে এই ভাইরাসটার কারণে অন্যরা উদগ্রীব হোক।’ তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে এই ভাইরাসের প্রভাব চীনের অর্থনীতিতেও পড়েছে। আমি ইতোমধ্যে অনেকগুলো বাজার ঘুরেছি, আগে এসব বাজারে শাক-সবজির কোনো ঘাটতি না থাকলেও এখন কোনো কাঁচা তরকারি পাওয়া যাচ্ছে না, যা পেয়েছি তা শুষ্ক খাবার।’ গতকাল চীনের বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে ঢাকাকে জানানো হয়, করোনাভাইরাসের কারণে চীন থেকে বাংলাদেশিদের ফিরতে আরও ১৪ দিন লাগবে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধের লক্ষ্যে ১৪ দিন পর্যন্ত উহানে কাউকে প্রবেশ করতে দেবে না স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

Post a Comment

 
Top