বিশেষ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়ায় ওমান প্রবাসীর স্ত্রী ও তিন সন্তানের জননী (৩৫)-‌কে অর্ধনগ্ন করে ব্যাপক লাঠিপেটা ও নির্যাতনের ঘটনায় মোলাইম খান (৪৫)-কে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৮ মে ) তাকে মৌলভীবাজার কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।  রবিবার আদালতের মাধ্যমে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে জানিয়েছে পুলিশ।  এর আগে গত শুক্রবার (১৭ মে) মধ্যরাতে উপজেলার বরমচাল ইউনিয়নের কলিমাবাদ এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।  আটককৃত মোলাইম খান বরমচাল ইউনিয়নের উজানপাড়া গ্রামের মৃত সরল খানের ছেলে।

পুলিশ  ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে মোলাইম খানের ঘরে দুই স্ত্রী  রয়েছে ও ৬ সন্তানের জনক সে। এছাড়াও তিনি আরো দুই নারীকে বিয়ে করেছিলেন। কিছুদিন সেই দুই স্ত্রী পরে তাকে ছেড়ে যান। এলাকায় মোলাইম খানের একাধিক বিয়ে করার প্রবণতার ব্যাপারে ব্যাপক গুঞ্জন রয়েছে। সর্বশেষ প্রবাসীর স্ত্রী ও তিন সন্তানের জননীকে জালিয়াতির মাধ্যমে বিয়ের কাগজ তৈরী করে নিজেকে ওই প্রবাসীর স্ত্রীর স্বামী দাবি করে প্রায়ই উত্যোক্ত এবং নির্যাতন করতো।গত ১৩ মে (সোমবার) উপজেলার বরমচালে প্রবাসীর স্ত্রীকে লাঠিপেটা করেন বিয়ে পাগল মোলাইম খান ।

এ ব্যাপারে প্রবাসীর স্ত্রী কুলাউড়া থানায় পরের দিন একটি অভিযোগ দায়ের করেন।  অভিযোগের পাশাপশি এ ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ভাইরাল হলে কুলাউড়া থানা পুলিশ মোলাইমকে আটকের জন্য তৎপরতা বাড়িয়ে দেয়।  এরই একপর্যায়ে শুক্রবার গভীর রাতে তাকে আটক করেন কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ ইয়ারদৌস হাসানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ।

এবিষয়ে কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইয়ারদৌস হাসান আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার রাতে তাকে করা হয়েছে।  জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের মাধ্যমে তাকে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে।

 

Post a Comment

 
Top