কুলাউড়ার ৭ ইউনিয়নে মেম্বার নির্বাচিত হলেন যারা (বিস্তারিত)
স্টাফ রিপোর্টারঃ কুলাউড়া উপজেলার ৭ ইউনিয়নে সাধারণ ওয়ার্ডে সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন যারা তারা হলেন- 
বরমচাল ইউনিয়নঃ ১ নং ওয়ার্ডে ৬ প্রার্থীর মধ্যে কালাম মিয়া (তালা) ২৫৬ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি পাখি মিয়া (টিউবওয়েল) ২৪৮ ভোট পান। ২ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে শিশু উদ্দিন (ফুটবল) ৪৭০ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি তৈমুছ খান (মোরগ) ৩৪৮ ভোট পান। ৩ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে মুস্তাফিজুর রহমান (ফুটবল) ৩৮৮ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি মুহিব আলী রাজা (তালা) ২৬৬ ভোট পান। ৪ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে আশরাফুল ইসলাম (ফুটবল) ৩৭৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি বাছিদুর রহমান (তালা) ৩৬৩ ভোট পান। ৫ নং ওয়ার্ডে ২ প্রার্থীর মধ্যে আতিকুর রহমান (মোরগ) ৩২৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। প্রতিদ্বন্দি জলিল আহমদ (ফুটবল) ২৮৩ ভোট পান। ৬ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে সাহানুর আহমদ (ফুটবল) ৬৯৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি মরহম আলী (মোরগ) ৪৭১ ভোট পান। ৭ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে শামীম উদ্দিন (মোরগ) ২২৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি সাজাদ আলী (টিউবওয়েল) ২২১ ভোট পান। ৮ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে ময়নুল হক সোনা মিয়া (বৈদ্যুতিক পাখা) ৩৩৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি হেলাল আহমদ (মোরগ) ৩২৭ ভোট পান। ৯ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে চন্দন কুর্মী (মোরগ) ৫৩১ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি চুড়ামন দাস (ফুটবল)৩৫১ ভোট পান। 

ভূকশিমইল ইউনিয়নঃ ১ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে হোসেন খান (ফুটবল) ২৪১ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি নোমান আহমদ (তালা) ১৮৬ ভোট পান। ২ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে সাহেদ আহমদ(বৈদ্যুতিক পাখা) ৫১৮ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুল¬াহ মোঃ আব্দুস সালাম ৫০৫ ভোট পান। ৩ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে নজরুল ইসলাম (তালা) ৬১০ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি ফারুক মিয়া (ফুটবল) ৫৫৩ ভোট পান। ৪ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে ফখরুল ইসলাম (ফুটবল) ৩৫৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি রইয়ব আলী (টিউবওয়েল) ৩৫১ ভোট পান। ৫ নং ওয়ার্ডে ২ প্রার্থীর মধ্যে শায়রুল ইসলাম (টিউবওয়েল) ৫৪২ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি এলাইছ মিয়া (ফুটবল) ৪৩৩ ভোট পান। ৬ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আব্দুল মালিক (ফুটবল) ৭৭৩ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি সেলিম মিয়া (তালা) ৪০৪ ভোট পান। ৭ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আনফর আলী (টিউবওয়েল) ৩৭২ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আয়াজ আলী (মোরগ) ৩৪১ ভোট পান। ৮ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে ফজলুর রহমান (তালা) ৪৯৬ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুল খালিক পাখি (মোরগ) ৪৬৮ ভোট পান। ৯ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে আসমল মিয়া (ফুটবল) ৫৭৩ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি খাজান মিয়া (টিউবওয়েল) ৩৭৩ ভোট পান।

জয়চন্ডী ইউনিয়নঃ ১ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আজিজ উদ্দিন লবিক (টিউবওয়েল) ৫৯৬ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আলিম আহমদ (তালা) ৫০১ ভোট পান। ২ নং ওয়ার্ডে ৬ প্রার্থীর মধ্যে লোকমান মিয়া ৫৩০ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি জাহাঙ্গীর হোসেন (ক্রিকেট ব্যাট)৪৯০ ভোট পান। ৩ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে বিমল দাস (ফুটবল) ৩৯৮ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি শাইস্তা মিয়া (মোরগ) ২২১ ভোট পান। ৪ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে শামীম আহমদ (টিউবওয়েল) ৬০৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুস সালাম (ফুটবল) ২২৪ ভোট পান। ৫ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে শংকর উরাং ৪২৮ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি মনির উদ্দিন (তালা) ২৬৪ ভোট পান। ৬ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে মনু মিয়া (ফুটবল) ৮৫৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি নুরুল হক দুদু (তালা) ৭৫৭ ভোট পান। ৭ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আজমল আলী (মোরগ) ৭৯৮ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি সোনাওর আলী(তালা) ২৮২ ভোট পান। ৮ নং ওয়ার্ডে ৭ প্রার্থীর মধ্যে খালিক মিয়া ( আপেল) ৪১৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি শিবু সূত্রধর (তালা) ৩০৫ ভোট পান। ৯ নং ওয়ার্ডে ৬ প্রার্থীর মধ্যে রমজান আলী (ফুটবল) ৭১৬ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি ফজলুল আউয়াল (বৈদ্যুতিক পাখা) ৫৩০ ভোট পান।

ব্রাহ্মনবাজার ইউনিয়নঃ ১ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে মোস্তফা কামাল (ফুটবল) ১১৫৫ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি ছয়ফুল ইসলাম (বৈদ্যুতিক পাখা) ৮৩৮ ভোট পান। ২ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে জাহেদুল হক মুত্তাকিম(বৈদ্যুতিক পাখা) ৬৮৫ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি লুৎফুর রহমান (তালা) ৬২০ ভোট পান। ৩ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে আব্দুল কাদির (বৈদ্যুতিক পাখা) ৫৮০ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আতাউর রহমান (টিউবওয়েল) ৪৭৪ ভোট পান। ৪ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে সত্য নারায়ন নাইড়– (মোরগ) ৫৮৫ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি সাইফুল ইসলাম (ফুটবল) ৩০৯ ভোট পান। ৫ নং ওয়ার্ডে ৬ প্রার্থীর মধ্যে মাসুক মিয়া (ক্রিকেট ব্যাট) ৮৫৪ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আছকির মিয়া (ফুটবল) ৬২৫ ভোট পান। ৬ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে সনৎ কুমার গোয়ালা (টিউবওয়েল) ৪৪৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি অনরজিত পান্ডে (তালা) ২৭৮ ভোট পান। ৭ নং ওয়ার্ডে ৭ প্রার্থীর মধ্যে কামাল হোসেন (আপেল) ২৫৩ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুল হাই শামীম (ফুটবল) ২৩৮ ও দিলীপ চন্দ্র নাথ (টিউবওয়েল) ২৩৮ ভোট পান। ৮ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে ফজলুর রহমান (ফুটবল) ৬১৬ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুস সালাম (মোরগ) ৪০০ ভোট পান। ৯ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আব্দুল মতিন(বৈদ্যুতিক পাখা) ৩৮৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি দোলোয়ার হোসাইন (তালা) ৩৭৫ ভোট পান। 

কাদিপুর ইউনিয়নঃ ১ নং ওয়ার্ডে ৭ প্রার্থীর মধ্যে জসিম আহমদ (বৈদ্যুতিক পাখা) ৩৯০ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আতাউর রহমান আতিক (মোরগ) ৩১৩ ভোট পান। ২ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে আজিজুল ইসলাম (টিউবওয়েল) ৩৫৪ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি কমর উদ্দিন (ফুটবল) ৩৫৬ ভোট পান। ৩ নং ওয়ার্ডে ২ প্রার্থীর মধ্যে সাজু মিয়া (ফুটবল) ৭৬৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। প্রতিদ্বন্দি আব্দুর রহিম মিটু (মোরগ) ৫৬২ ভোট পান। ৪ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে মনির মিয়া (ফুটবল) ২৭৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি মন্টু দেব নাথ (আপেল) ১৭৫ ভোট পান। ৫ নং ওয়ার্ডে ২ প্রার্থীর মধ্যে গোলাম মোস্তফা (ফুটবল) ৬০৪ ভোট পেয়ে জয়ী হন। প্রতিদ্বন্দি দিপু ধর (বৈদ্যুতিক পাখা) ৬০০ ভোট পান। ৬ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে নজরুল ইসলাম (মোরগ) ৩৪৬ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি শফিক মিয়া (টিউবওয়েল) ৩৪২ ভোট পান। ৭ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে হারুন মিয়া(টিউবওয়েল) ৩০৩ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি খলিলুর রহমান খলিল (তালা) ২৫৪ ভোট পান। ৮ নং ওয়ার্ডে ৬ প্রার্থীর মধ্যে সাতির মিয়া(টিউবওয়েল) ৮৫৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি রকিবুর রহমান (ক্রিকেট ব্যাট) ৬০৭ ভোট পান। ৯ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে আজাদ মিয়া তালা প্রতিক নিয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আবু তাহের। 

কুলাউড়া সদর ইউনিয়নঃ ১ নং ওয়ার্ডে ২ প্রার্থীর মধ্যে ছালিক আহমদ (টিউবওয়েল) ৪০৩ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুর রব কাজল (ফুটবল) ২৬১ ভোট পান। ২ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আলমগীর হোসেন আলম (মোরগ) ২১৫ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি হারুন এন আহমেদ (ফুটবল) ১৯৬ ভোট পান। ৩ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে আব্দুস সবুর চৌধুরী (তালা) ২৩১ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি অভিজিত পাল পলু (টিউবওয়েল) ২০১ ভোট পান। ৪ নং ওয়ার্ডে ৬ প্রার্থীর মধ্যে নাদিম মাহমুদ রাজু (বৈদ্যুতিক পাখা) ৩৩৬ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি ফারুক মিয়া (মোরগ) ২৩৭ ভোট পান। ৫ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে রাম বিলাস দুসাদ (ফুটবল) ৭৩২ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি বিদ্যা ধর গোয়ালা (টিউবওয়েল) ৪৬৯ ভোট পান। ৬ নং ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় জমির আলী জয়ী। ৭ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে চেরাগ আলী (তালা) ২৮৩ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি লুৎফুর রহমান (মোরগ) ২৭৪ ভোট পান। ৮ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে জমসেদ আলী (বৈদ্যুতিক পাখা) ২৫৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি ফজলু মিয়া (টিউবওয়েল) ২০৪ ভোট পান। ৯ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে মোঃ রফি উল¬্যাহ (মোরগ) ৪৭৮ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুল আজিজ (ফুটবল) ৩২১ ভোট পান।

রাৎগাঁও ইউনিয়নঃ ১নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে নোমান আহমেদ (টিউবওয়েল) ৪৮৩ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি সাতির মিয়া (মোরগ) ৩৫৯ ভোট পান। ২ নং ওয়ার্ডে ৩ প্রার্থীর মধ্যে সেলিম আহমদ (মোরগ) ৫৬০ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি শাহনাজ বাহার (ফুটবল) ১৮৭ ভোট পান। ৩ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আনু মিয়া (ফুটবল) ৪৫২ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি মাসুক মিয়া (তালা) ৩৩৫ ভোট পান। ৪ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে ইসমাইল হোসেন (মোরগ) ৪৮১ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আবু সুফিয়ান (টিউবওয়েল) ৩৩৭ ভোট পান। ৫ নং ওয়ার্ডে ৫ প্রার্থীর মধ্যে আব্দুল মুক্তাদির মনু (তালা) ৫৩০ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি সালেহ আহমদ সেলিম (টিউবওয়েল) ৪৯১ ভোট পান। ৬ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আব্দুল মুক্তাদির (টিউবওয়েল) ৪৫৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি গিয়াস উদ্দিন (ফুটবল) ৩১১ ভোট পান। ৭ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আরিফুল ইসলাম (মোরগ) ৩৫৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি মোরছালিন আরাফাত রুনেল (তালা) ২৭৮ ভোট পান। ৮ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে আব্দুল আজিজ চৌধুরী (তালা) ৩৯৪ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি সুরুজ আলী (ফুটবল) ২৪৩ ভোট পান। ৯ নং ওয়ার্ডে ৪ প্রার্থীর মধ্যে ইসমাইল আলী (ফুটবল) ৬৭৯ ভোট পেয়ে জয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি চেরাগ আলী (মোরগ) ৫৮১ ভোট পান।

Post a Comment

 
Top